Skip to content
Home » সারা জীবনের জন্য দাদ বা দাউদ সারান একটি উপাদানে । দাদ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা ২০২২ ।

সারা জীবনের জন্য দাদ বা দাউদ সারান একটি উপাদানে । দাদ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা ২০২২ ।

সারা জীবনের জন্য দাদ বা দাউদ সারান একটি উপাদানে । দাদ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা ।

দাদ বা দাউদ

দাদ এমন একটি ভাইরাসজনিত রোগ যা আপনি কোন কাটা  যাওয়ার স্থানে  দাদ এর যে পানি বা আটা গুলো সেই স্থানে লাগালে সেখানেও দাদ ভাবে ।সারা জীবনের জন্য দাদ বা দাউদ সারান একটি উপাদানে । দাদ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা । দাদ যখন চুলকানোর শুরু করে তখন আর থামার নামই নেয় না । যখন আপনি দাদ   শুরু করেন তখন আপনার অনেক শান্তিময় মনে হবে ।  কিন্তু যখন চুলকানো  থামাবেন  তখন এর জ্বালাটা বুঝতে পারবেন । তাই সেই সকল মানুষদের জন্য আজকের এই পোস্ট টি ।  আপনারা কিভাবে ঘরে বসে ঘরোয়া পদ্ধতিতে সারা জীবনের জন্য দাদ সারাবেন  সেই সকল টিপস নিয়ে আলোচনা করব ।  তাই চলুন আর বেশি কথা না বাড়িয়ে পোস্ট শুরু করা যাক । 

দাদ বা দাউদ কেন হয়ঃ

দাদ এটি একটি ভাইরাসজনিত রোগ ।  বিভিন্ন ভাইরাসের ক্ষেত্রে আপনার বিভিন্ন স্থানে দাদ হতে পারে ।  যেমন  আপনার যেকোন স্থান যদি সব সময় ভেজা থাকে  এটি হলো দাদ এর মূল লক্ষ্য । সেই সকল ভেজায় স্থানে বিভিন্ন ভাইরাস  এসে জমা হয় । আর সেই সকল ভাইরাস থেকে আপনার দাদ  হতে পারে ।এছাড়াও যদি আপনি আপনার অপরিষ্কার হাত দিয়ে কোন স্থানে   চুলকান সেটি একটি কারণ হতে পারে । তাই সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকার চেষ্টা করবেন ।  আসুন এবার  দেখে নেয়া যাক এই দাদ কে কিভাবে ঘরোয়া পদ্ধতিতে সারা জীবনের জন্য নিঃশেষ করে দেয়া যায় । 

 সারা জীবনের জন্য দাদ বা দাউদ সারান একটি উপাদানে । দাদ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা ।

ঘরোয়া পদ্ধতিতে দাদ বা দাউদ  সারানোর উপায়ঃ

আপনাদের আগেই বলেছি যাতে একটি ভাইরাসজনিত রোগ একজনের কাছ থেকে অন্যজনের কাছে যেতে পারে ।  তাই দাদ  হলে সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা থাকতে হবে ।  আপনার কাপড়-চোপড় যদি অন্য কেউ ব্যবহার করে তারও দাদ  সম্ভাবনা ৮০% থাকে । তাই যে স্থানের দাদ  হয়েছে সেই স্থানটি সবসময় পরিষ্কার কাপড় বা টিস্যু দিয়ে মুছে দিতে হবে ।দাদ যখন চুলকাবেন  তখন সেটি থেকে যে পানি বা তরল পদার্থগুলো বের হবে সেটি গরম পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে । এখন চলুন কিভাবে ঘরোয়া পদ্ধতিতে আপনি দাদ চিকিৎসা করাবেন ।

আরও পড়ুন

=> দাদ এর চিকিৎসা  প্রায় যুগ  যুগ থেকেই চলে আসছে । আদিম কালের মানুষের যখন দাদ  হত তারা বিভিন্ন গাছের লতাপাতা দিয়ে এর চিকিৎসা করতে । আজকে আমি আপনাদের সেই টিপস গুলোই দিব  এটি ১০০%  কাজ করবে ইনশাল্লাহ  । 

=> প্রথমেই আপনাকে একটি বা দুটি সিমের পাতা নিতে হবে ।  সিমের পাতার দুই উপকার হয় । একটি হলো সাদা ,  এবং একটি হলো কাল ।  আপনি যেটা নেবেন সেই  পাতাটার রং কালো হতে হবে । সাদাটা নিলে হবে না । 

 সারা জীবনের জন্য দাদ বা দাউদ সারান একটি উপাদানে । দাদ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা ।

=>আরও পড়ুন

=> এরপর সামান্য পরিমাণে একটু লবণ নিতে হবে । 

=> এরপর  কাল সিমের পাতা গুলো বাটনা দিয়ে পিশে  রস বের করে নিতে হবে ।

=>  রস বের হয়ে গেলে ,  সামান্য পরিমাণ লবণের সাথে মিশিয়ে নিন ।  এরপর দাদ  সারা জীবনের জন্য চুলকিয়ে নিন ।  চুলকানোর পর যে তরল পদার্থ বের হবে সেটি গরম পানি দিয়ে ভালো করে মুছে নিন ।  মুছা হয়ে গেলে সেই মিশ্রণটি দাদ  স্থানে লাগিয়ে দিন ।  লাগানোর সাথে সাথে ১ মিনিট  ও তার বেশি   যায/  ব্যাথা অনুভব হতে পারে ।  আপনি প্রতিদিন একবার করে লাগাবেন । ২-৩ দিনের মধ্যে দেখবেন সেই স্থানটি কালো হয়ে গেছে ।  এবং সারা জীবনের জন্য দাদ   নিশ্ব হয়ে গেছে ।

 

=> উপরের দেওয়া যে সকল টিপস গুলো দেওয়া হয়েছে সেসকল টিপসগুলো মেনে চললে ইনশাআল্লাহ  আপনি ১০০ % উপকার পাবেন ।  আপনি যদি  উপকৃত হন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন । 

 সারা জীবনের জন্য দাদ বা দাউদ সারান একটি উপাদানে । দাদ রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা ।

আরও ভাল করে পড়তে ক্লিক করুন

দাদ এর ক্রিম বা মলম নামঃ

 আপনি যদি উপরের টিপসগুলো মানতে আপনার কষ্ট হয় তাহলে  আপনি ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন ।  ক্রিম ব্যবহার করলে আপনার কোন রকম জ্বালাপোড়া করবে না ।  কিন্তু  ক্রিম গুলো ব্যবহার করে যে আপনার সারা জীবনের জন্য দাদ  চলে যাবে এর গ্যারান্টি আমি দিতে পারবো না ।কেননা অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় যে ক্রিম ব্যবহারের পর দাদ  সেরে যায় ।  পরবর্তীতে দেখা যায় যে দু তিন মাস পর আবার দাদ  দেখা যায় ।  আপনার যেটা ভালো হয় সেই  পদ্ধতি ব্যবহার করতে  পারেন । 

চলুন এবার দেখে নেয়া যাক দাদ এর ক্রিমের নাম 

=> pevisone cream

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *