Skip to content
Home » রিজিক নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস, কিছু কথা ও হাদিস | রিজিক নিয়ে কোরআনের আয়াত

রিজিক নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস, কিছু কথা ও হাদিস | রিজিক নিয়ে কোরআনের আয়াত

রিজিক নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস, কিছু কথা ও হাদিস

হ্যালো ভিউয়ার্স আসসালামু আলাইকুম । আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন । আজকে আমি আমার পোষ্টের মাধ্যমে রিজিক নিয়ে উক্তি স্ট্যাটাস, কিছু কথা এবং হাদিস তুলে ধরব । অনেকেই আছেন যারা  রিজিক নিয়ে হাদিস অথবা কোরআনের আয়াত সম্পর্কে জানার জন্য অনলাইনে সার্চ করে থাকেন । রিজিক হচ্ছে মহান আল্লাহ তায়ালার একটি নিয়ামত । মানুষ জন্মের আগে থেকেই মহান আল্লাহ তাআলা তার রিজিক দিয়ে দিয়েছেন । পৃথিবীতে  মানুষ কি খাবে তার সমস্ত দায়িত্ব মহান আল্লাহ তায়ালা নিজেই নিয়ে নিয়েছেন । তাইতো আপনারা আপনাদের রিজিক নিয়ে কখনো হতাশ হবেন না ।

দেখবেন কোন না কোন ভাবে আপনার রিজিক আপনি পেয়ে যাবেন । যেটা আপনাকে রিজিকে আছে সেটা আপনি খেতে পারবেন । তাই রিজিক নিয়ে কখনো মানুষকে খোটা দিবেন না । কারণ আমাদের সকলকে খাওয়াই মহান আল্লাহ তা’আলা । আমরা তার দোয়ায় পৃথিবীতে খেতে পারি পৃথিবীতে বেঁচে আছি তার দয়ায় । তাই আজকে আমি আমার প্র পোস্টের মাধ্যমে রিজিক নিয়ে  উক্তি, স্ট্যাটাস, হাদিস তুলে ধরব । যেন আপনারা আমাদের পোস্টের মাধ্যমেই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে পারেন ।

রিজিক নিয়ে উক্তি

আজকে আমি আমার পোস্টের মাধ্যমে রিজিক নিয়ে উক্তি তুলে ধরব । কার রিজিক কোথায় আছে তা একমাত্র শুধু আল্লাহতালাই জানে । তাই আজকে আমি আমার পোস্টের মাধ্যমে রিজিক নিয়ে উক্তি তুলে ধরব । অনেকেই আছেন রিজিক সম্পর্কে জানার জন্য অনলাইনে সার্চ করে থাকেন আবার এ সকল উক্তি তারা ফেসবুকে অথবা টুইটারে শেয়ার করতে চান । তাই আপনারা যারা রিজিক নিয়ে উক্তি সম্পর্কে জানতে চান তারা আমাদের সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন ।আশা করছি তাহলেই আপনারা রিজিক সম্পর্কে আমাদের পোস্টের মাধ্যমে জানতে পারবেন ।

তোমরা আল্লাহর কাছে রিজিক তালাশ কর, তার ইবাদত কর এবং তার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর। তারই কাছে তোমাদের ফিরে যেতে হবে।”
সুরা আনকাবুত : আয়াত ১৭

তোমার যতই অর্থ থাকুক না কেন তুমি তখনই রিজিক গ্রহণ করতে পারবে যখন মহান আল্লাহ্‌ তায়ালা চাইবেন।
ইব্রাহিম বিন খালিদ

হারাম রিজিক গ্রহণ করে আমরা উপকৃত হইনা বলেই মহান আল্লাহ্‌ তায়ালা তা আমাদের জন্য হারাম করেছেন।
নুরা আল আজিজ

তুমি যখন একজন গরিব-মিসকিনকে খাবার দান করবে, আল্লাহ্‌ তায়ালা তোমার রিজিককে পবিত্র করে দিবেন।
মহানবি হযরত মুহাম্মত (স)

রিজিকের মালিক একমাত্র আল্লাহ্‌ তায়ালা, আমরা সকলে রিজিকের জন্য একমাত্র তার নিকট প্রার্থনা করবো।
মহানবি হযরত মুহাম্মত (স)

রিজিক অর্জনের জন্য শুধু আল্লাহর উপর ভরসা করে কাজ বন্ধ করে বসে থাকলে হবেনা, আপনাকে পরিশ্রম করতে হবে।
আবুল মিশকাত

রিজিক মহান আল্লাহ তা’য়ালা কর্তৃক বড় নেয়ামত৷ আল্লাহ্‌ প্রদত্ত রিজিক প্রতিটি প্রাণী ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে প্রাপ্ত হয়ে থাকে ৷
সূরা হুদ

মহান আল্লাহ যার জন্য ইচ্ছা করেন তার রিজিক বাড়িয়ে দেন এবং এবং যার প্রতি অসন্তুষ্ট হন তার রিজিক সংকুচিত করেন।
সূরা আর-রাদ: ২৬

আপনার রিজিক আপনার কষ্টের মাধ্যমেই উপার্জন করে নিতে হবে, আল্লাহ্‌ তায়ালা আপনাকে পথ দেখাবেন মাত্র
সালমান বিন আবদুল আজিজ

 রিজিক নিয়ে কোরআনের আয়াত

একজন মুসলিম হিসেবে রিজিক সম্পর্কে আমাদের জানা দরকার । আর রিজিক সম্পর্কে কোরআনে অনেক আয়াত রয়েছে । সেই কোরআনের আয়াতগুলো আমরা জানলে রিজিক সম্পর্কে জানতে পারব । আবার অনেকেই রিজিক সম্পর্কে জানার জন্য এই কোরআনের আয়াত গুলো তারা অনলাইনে সার্চ করে থাকেন । তাই আজকে আমি আমার পোস্টের মাধ্যমে সেই কোরআনের আয়াতগুলো তুলে ধরবো যেন আপনারা রিজিক সম্পর্কে জানতে পারেন । আর নিজের ঈমানকে আরো বেশি মজবুত করতে পারেন । তাহলে আসুন জেনে নেয়া যাক রিজিক নিয়ে কোরআনের কিছু আয়াত ।

  • মহান আল্লাহ তায়ালা তার বান্দাদের প্রতি দয়ালু, যাকে ইচ্ছা রিজিক দান করেন, তিনি প্রবল পরাক্রমশালী।
    সুরা শুরা: আয়াত ১৯
  • কার রিজিক কোথায় রয়েছে তা একমাত্র মহান আল্লাহ্‌ ব্যতিত কেউ জানেন না।
    আব্রাহাম ইলাহি
  • পৃথিবীতে বিচরণশীল সকল প্রাণীর রিজিকের দায়িত্ব আমার (মহান আল্লাহ্‌ তায়ালার)।
    সূরা হুদ, আয়াত ৬
  • আল-কোরআনে পরম করুণাময় আল্লাহপাক ঘোষণা করেছেন, ‘পৃথিবীতে বিচরণশীল সকল প্রাণীর রিজিকের দায়িত্ব আল্লাহ সয়ং তাঁর নিজের ওপর ন্যস্ত করেছেন।
    সূরা হুদ, আয়াত ৬
  • আল্লাহ রিজিকদাতা। নিশ্চয় তিনি আল্লাহ রিজিকদাতা। আল্লাহ তা’আলাই তো জীবিকাদাতা শক্তির আধার, পরাক্রান্ত।
    সূরা: যারিয়াত, আয়াত ৫৮
  • আল্লাহ যাকে ইচ্ছা সীমাহীন সম্পত্তি দান করেন।
    সূরা: আল-বাক্বারাহ, আয়াত ২১২

রিজিক নিয়ে হাদিস

মহান আল্লাহতালা প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য তাঁর রিজিক দিয়ে পাঠিয়েছেন । মানুষ এর  চেয়ে শস্য দানা পর্যন্ত বেশি খাদ্য আহার করতে পারবে না । যখনই আমাদের রিযিক শেষ হয়ে যাবে তখনই আমাদের এই পৃথিবী থেকে চির বিদায় নিতে হবে । তাইতো আমরা কেউ কখনোই রিজিকের বেশি  খেতে পারব না আর রিজিক শেষ হলেই আমাদের পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে হবে । তাই আমরা সকলেই রিজিকের পিছনে না ছুটে  মহান আল্লাহ তাআলার এবাদতে মশগুল থাকবো । মহান আল্লাহতালা তার ইবাদত করার পর তিনি আমাদেরকে মাঠে ছড়িয়ে দিতে বলেছেন রিজিকের জন্য । তাই আমরা মহান আল্লাহ তাআলার ইবাদত করব এবং নিজে নিজেকে জন্য কাজ করব । আর আসুন জেনে নিয়ে যাক  রিজিকসম্পর্কে কিছু হাদিস ।

  1. সৎ পথে চলো সৎ পথে ইনকাম করো দেখবে তোমাদের রিজিকের অভাব হবে না।
    প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:)
  2. তুমি যখন একজন গরিব-মিসকিনকে খাবার দান করবে, আল্লাহ্‌ তায়ালা তোমার রিজিককে পবিত্র করে দিবেন।
    হযরত মুহাম্মদ (সা:)
  3. রিজিক অর্জনের জন্য শুধু আল্লাহর উপর ভরসা করে কাজ বন্ধ করে বসে থাকলে হবেনা, আপনাকে পরিশ্রম করতে হবে।
    আবুল মিশকাত
  4. মহান আল্লাহ যার জন্য ইচ্ছা করেন তার রিজিক বাড়িয়ে দেন এবং এবং যার প্রতি অসন্তুষ্ট হন তার রিজিক সংকুচিত করেন।
    সূরা আর-রাদ: ২৬
  5. সবসময় আল্লাহর উপর ভরসা রাখতে শেখো, তিনি তোমার রিজিকের ব্যবস্থা করে রেখেছেন, তিনি তোমাকে নিরাশ করবেন না।”
    মহানবি হযরত মুহাম্মত (স)
  6. কার রিজিক কোথায় রয়েছে তা একমাত্র মহান আল্লাহ্‌ ব্যতিত কেউ জানেন না।
    আব্রাহাম ইলাহি
  7. মহান আল্লাহ্‌ তায়ালা বলেন, “আকাশে রয়েছে তোমাদের রিজিক ও প্রতিশ্রুত সব কিছু।
    সূরা জারিয়াত: ২২
  8. হালাল অর্থ উপার্জন করে রিজিক গ্রহণের মধ্যে এক প্রকার শান্তি রয়েছে, যা হারাম অর্থ উপার্জন করে গ্রহণের মাঝে নেই।
    মানাহিল আইমা

সর্বশেষ কথা,

 আমি আমার পোষ্টের মাধ্যমে রিজিক নিয়ে উক্তি, হাদিস এবং কোরআনের কিছু আয়াত তুলে ধরেছি । আপনারা যারা  রিজিক সম্পর্কে এ বিষয়গুলো নিয়ে জানতে চান  তারা আমাদের  সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন । আশা করছি তাহলে আপনারা আমাদের পোস্টের মাধ্যমে রিজিক সম্পর্কে জানতে পারবেন । তাহলে আসুন জেনে নেয়া যাক রিজিক সম্পর্কে উক্তি হাদিস এবং কোরআনের আয়াত গুলো সম্পর্কে । এ ধরনের আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটে সাথেই থাকুন । আমাদের ওয়েবসাইটে পরিদর্শন করার জন্য আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *