Skip to content
Home » রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা | পহেলা বৈশাখের কবিতা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা | পহেলা বৈশাখের কবিতা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা

হ্যালো ভিউয়ার্স আসসালামু আলাইকুম । আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন । আজকে আমি আমার পোষ্টের মাধ্যমে বাংলা নববর্ষের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা তুলে ধরব । নববর্ষ হচ্ছে বাংলা মাসের প্রথম দিন নববর্ষ কে আপনি পহেলা বৈশাখ বলতে পারেন । পহেলা বৈশাখে সারা বাংলায় নানা ধরনের উৎসবের আয়োজন করা হয় । রমনার বট মূলে পহেলা বৈশাখে রবীন্দ্র সংগীত নজরুল সংগীত গাওয়া হয় । নববর্ষ অথবা পহেলা বৈশাখ সম্পর্কে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর অনেক কবিতা লিখে গেছেন । যা বাঙালিদেরকে স্মরণ করিয়ে দেয় নববর্ষের কথা । প্রত্যেক বাঙালি এই নববর্ষের দিনে তাদের ঐতিহ্য ধরে রাখতে নানা ধরনের আয়োজন করে থাকেন প্রত্যেক ঘরে ঘরে সেই দিন পান্তাইলিশ পাওয়া যায় । পহেলা বৈশাখে সকল ছেলেমেয়ে সাজেয়ে নানা ধরনের সাজে । আর পয়লা বৈশাখ আসলেই প্রত্যেক দোকানে দোকানে হালখাতার আয়োজন করা হয় এটাই বাঙ্গালীদের ঐতিহ্য।

বাঙালিদের প্রথম মাস বৈশাখ তাই পহেলা বৈশাখে নববর্ষ পালন করা হয় । তাই আজকে আমি আমার পোষ্টের মাধ্যমে শুভ নববর্ষে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা গুলো তুলে ধরব।  আপনারা যেন খুব সহজেই কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা গুলো পেয়ে যান । এবং এই কবিতাগুলো পহেলা বৈশাখের আবৃত্তি করতে পারেন । পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে স্কুল কলেজে নানা ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বা পাতায় ইলিশের দোকান দেওয়া হয়। সে সকল অনুষ্ঠানে এ সকল কবিতা তুলে ধরা হয় যেন বাঙালিরা তাদের ঐতিহ্য মনে রাখতে পারে যুগ যুগ ধরে । পৃথিবী যতদিন থাকবে ততদিন বাঙ্গালীদের এই ঐতিহ্য থাকবে। তাই আসুন জেনে নেয়া যাক কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা ।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা

আপনি কি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা সম্পর্কে জানার জন্য এসেছেন । তাহলে আমাদের আজকের এই পোস্টে আপনাকে স্বাগতম । কারণ আজকে আমি আমার পোষ্টের মাধ্যমে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা তুলে ধরব। আপনারা যারা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা পেতে চান তারা আমাদের সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন । আশা করছি আপনারা আমাদের পোস্টের মাধ্যমে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা গুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন । তাহলে আসুন জেনে নেয়া যাক কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পহেলা বৈশাখের কবিতা অথবা নববর্ষের কবিতা ।

এসো হে বৈশাখ
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
পর্যায়ঃ প্রকৃতি

এসো, এসো, এসো হে বৈশাখ।
তাপসনিশ্বাসবায়ে মুমূর্ষুরে দাও উড়ায়ে,
বৎসরের আবর্জনা দূর হয়ে যাক॥
যাক পুরাতন স্মৃতি, যাক ভুলে-যাওয়া গীতি,
অশ্রুবাষ্প সুদূরে মিলাক॥
মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা,
অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা।
রসের আবেশরাশি শুষ্ক করি দাও আসি,
আনো আনো আনো তব প্রলয়ের শাঁখ।
মায়ার কুজ্ঝটিজাল যাক দূরে যাক॥

নববর্ষ এল আজি
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

নববর্ষ এল আজি
দুর্যোগের ঘন অন্ধকারে;
আনে নি আশার বাণী,
দেবে না সে করুণ প্রশ্রয়;
প্রতিকূল ভাগ্য আসে
হিংস্র বিভীষিকার আকারে—
তখনি সে অকল্যাণ
যখনি তাহারে করি ভয়।
যে জীবন বহিয়াছি
পূর্ণ মূল্যে আজ হোক কেনা
দুর্দিনে নির্ভীক বীর্যে
শোধ করি তার শেষ দেনা।
(স্ফুলিঙ্গ কাব্যগ্রন্থ)

নব বৎসরে করিলাম পণ
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

নব বৎসরে করিলাম পণ–
লব স্বদেশের দীক্ষা,
তব আশ্রমে তোমার চরণে
হে ভারত, লব শিক্ষা।
পরের ভূষণ পরের বসন
তেয়াগিব আজ পরের অশন;
যদি হই দীন, না হইব হীন,
ছাড়িব পরের ভিক্ষা।
নব বৎসরে করিলাম পণ–
লব স্বদেশের দীক্ষা।

না থাকে প্রাসাদ, আছে তো কুটির
কল্যাণে সুপবিত্র।
না থাকে নগর, আছে তব বন
ফলে ফুলে সুবিচিত্র।
তোমা হতে যত দূরে গেছি সরে
তোমারে দেখেছি তত ছোটো করে;
কাছে দেখি আজ হে হৃদয়রাজ,
তুমি পুরাতন মিত্র।
হে তাপস, তব পর্ণকুটির
কল্যাণে সুপবিত্র।

পরের বাক্যে তব পর হয়ে
দিয়েছি পেয়েছি লজ্জা।
তোমারে ভুলিতে ফিরায়েছি মুখ,
পরেছি পরের সজ্জা।
কিছু নাহি গণি কিছু নাহি কহি
জপিছ মন্ত্র অন্তরে রহি
তব সনাতন ধ্যানের আসন
মোদের অস্থিমজ্জা।
পরের বুলিতে তোমারে ভুলিতে
দিয়েছি পেয়েছি লজ্জা।

সে-সকল লাজ তেয়াগিব আজ,
লইব তোমার দীক্ষা।
তব পদতলে বসিয়া বিরলে
শিখিব তোমার শিক্ষা।
তোমার ধর্ম, তোমার কর্ম,
তব মন্ত্রের গভীর মর্ম
লইব তুলিয়া সকল ভুলিয়া
ছাড়িয়া পরের ভিক্ষা।
তব গৌরবে গরব মানিব,
লইব তোমার দীক্ষা।

সর্বশেষ কথা,

আমি আমার পোস্টের মাধ্যমে নববর্ষের কবিতা তুলে ধরেছি । আপনারা যারা কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষে কবিতা পেতে চান তারা আমাদের সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন আশা করছি আপনারা আমাদের আজকের এই পোষ্টের মাধ্যমে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নববর্ষের কবিতা গুলো পেয়ে যাবেন । এ ধরনের আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন । আমাদের ওয়েবসাইটে পরিদর্শন করার জন্য আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *