Skip to content
Home » থানকুনি পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ওষুধি গুন ২০২২ ।

থানকুনি পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ওষুধি গুন ২০২২ ।

থানকুনি পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ওষুধি গুন ২০২২ ।

থানকুনি পাতা দেখতে অনেকটা লাউ পাতার মতো আবার কোনোটা গোলাকার । থানকুনি পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে আজকে জানাবো  এবং এই পাতার রস খেলে আমাদের শরীরের কোন কোন ধরনের রোগ থেকে নিরাময় পাওয়া যাবে ।এই পাতার উপকারিতা সম্পর্কে আপনি জানলে অবাক হয়ে যাবেন যে সামান্য একটি পাতার এতগুলো গুণ থাকে কিভাবে । যারা এই পাতা সম্পর্কে ভাল জানেন তাদের কে একটিবার জিজ্ঞেস করে দেখবেন যে আসলেই পাতার গুনাগুন কত কি আসলে আছে নাকি নেই । বিশেষ করে যারা আগেকার মানুষ তাদেরকে জিজ্ঞেস করবেন ।  কারণ তারা  এ সম্পর্কে ভালো জানবেন ।

থানকুনি পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ওষুধি গুন ২০২২ ।

এই পাতাটির  রস নিয়মিত  আমাদের  দেহের মধ্যে যে সকল রোগ নিরাময় হবে তা নিয়ে এখন আলোচনা করব  ।  এর আগে আমরা জেনে নেবো যে থানকুনি পাতার উপকারিতা সম্পর্কে ।

আলকুশির বীজ সম্পর্কে জানতে নিচে ক্লিক করুন ।

আলকুশি বীজের উপকারিতা শারীরিক দুর্বলতা ও বীর্য ঘন করতে সব গুনাগুন ২০২২।

থানকুনি পাতার উপকারিতাঃ

  • থানকুনি পাতা প্রতিদিন নিয়মিত খেলে শরীরেরঅক্সিজেন সমৃদ্ধ ও রক্ত চলাচল বেড়ে যায় । রক্ত দ্রুত চলাচল করার জন্য প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে  পৌঁছে দেয়ার কারণে রোগ ব্যাধির প্রকোপ কমাতে সময় লাগে না । 
  •  পেটের মধ্যে যেকোনো সমস্যা সমাধান করতে এই পাতার বিশেষ ভূমিকা রয়েছে ।এই পাতা হজমশক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে । 
  • বিভিন্ন টেনশন বা মানসিক চাপের কারণে যদি ঘুমোতে না পারেন তাহলে প্রতিদিন থানকুনি পাতার রস খেতে পারেন ।  কারণ এই কথার মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি ।  এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি ইনফ্লামেটরি মানুষের মানসিক চাপের মাত্রা কমাতে সহায়তা করে । এই কারণে অতি সহজে মানুষ স্ট্রক ও দুশ্চিন্তা মুক্ত হতে পারে । 
  • এই পাতার মধ্যে আরও রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফলিক এসিড ।  শরীরের মধ্যে থাকা অ্যালজাইমার অথবা ডিমেনশিয়ার এর মত রোগে আক্রান্ত হওয়ার  আশঙ্কা খুবই কম । 

থানকুনি পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ওষুধি গুন ২০২২ ।

থানকুনি পাতার অপকারিতাঃ

এই পাতা যে শুধু উপকারিতা করে তা না এর অপকারিতাও রয়েছে । অনেক সময় দেখা যায় যে এই পাতা খেলে অনেক জনেরেই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যায় । যেমন  ঘুম ঘুম ভাব, মাথা ঘুরানো,বমি বমি ভাব ত্বকের সমস্যা প্রভৃতি দেখা দিতে পারে । যে সকল ব্যক্তিদের ডায়াবেটিস উচ্চ রক্তচাপ এর মধ্যে সমস্যা রয়েছে তারা অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়েই এটি সেবন করবেন ।কেননা এই পাতাটির  রস সেবন করলে শরীরের রক্ত চলাচল উচ্চগতির হয়ে  থাকে ।  আর আপনি যদি এই অবস্থায় খান তাহলে অনেক বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে । 

থানকুনি পাতার গাছঃ

 থানকুনি গাছের পাতা দেখতে দু’রকমের  হতে পারে একটা আছে অনেকটা  লাউয়ের পাতার মতো।  আবার  আরেকটা হচ্ছে গোলাকার চতুর্দিকে সবুজ এবং মাঝখানে সাদা । এই  গাছটি আপনি  আপনার বাড়ির আশে পাশে  ঝোপে ঝাড়ে দেখতে পাবেন । গাছটি আগে ভাল করে চিনে নেবেন এরপর এর পাতা থেকে রস বের করে নিয়মিত খাবেন । 

আরও জানতে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *